গলাচিপায় জননীর স্বামীর অত্যাচার

0
26
গলাচিপায় জননীর স্বামীর অত্যাচার
Search and buy domains from Namecheap

গলাচিপায় জননীর স্বামীর অত্যাচার (সাইদুল সিকদার গলাচিপা প্রতিনিধি):পটুয়াখালীর গলাচিপা উপজেলায় যৌতুকের দাবিতে স্বামী আশরাফ ফরাজির ৭ সন্তানের জননী কুলসুম বেগমের উপর শারিরীক অত্যাচার করে।

কুলসুম বেগম আইনি সহায়তার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসারের বরাবর একটি অভিযোগ করেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার শাহ মো. রফিকুল ইসলাম বিষয়টি আমলে নিয়ে গলাচিপা থানাকে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ করেন।

কুলসুম বেগম গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)কে বিষয়টি জানান।

গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. মনিরুল ইসলাম অভিযোগটি আমলে নিয়ে এসআই নজরুল রাড়ীকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে প্রতিবেদন দেওয়ার নির্দেশ দেন।

কুলসুম বেগম জানান প্রায় ৩০ বছর আগে উপজেলার রতনদী তালতলী ইউনিয়নের নিম হাওলা গ্রামের সুন্দর আলী ফরাজীর ছেলে আশ্রাফ ফরাজীর সাথে পারিবারিক ভাবে বিবাহ হয়।

তিনি আরও বলেন, বিবাহের পর থেকেই তার স্বামী যৌতুকের জন্য কুলসুম বেগমকে একাধিকবার শারিরিক ও মানসিক নির্যাতন করেন।

গলাচিপায় জননীর স্বামীর অত্যাচার সকালে বাজারের জন্য আমার স্বামীর দোকানে গেলে আমাকে বাজারের মধ্যে লোকজনের সামনে মারতে শুরু করে।

আমার ডাক চিৎকারে এলাকার লোকজন বের হলে আমার স্বামী ঘটনাস্থল থেকে চলে যায়।

পরে এলাকাবাসী আমাকে গলাচিপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন।

হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাঃ মেজবাহ উদ্দিন বলেন,

কুলসুম বেগমের বাম হাতের ১টি আঙ্গুল ভেঙ্গে যায় এবং শরীরে মারের কালো কালো চিহ্ন দেখা যায়।

এবিষয়ে আশ্রাফ ফরাজীর কাছে জানতে চাইলে তিনি মারধরের কথা অস্বীকার করেন।

এ বিষয়ে রতনদী তালতলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোস্তফা খান বলেন, আসলেই কুলসুম বেগম অসহায় ১টি মহিলা, বিষয়টি তিনি দেখবেন।

এব্যাপারে কুলসুম বেগম বাদী হয়ে নির্যাতন ও যৌতুক চাওয়ার বিরুদ্ধে গলাচিপা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিতভাবে জানান।

More>>

Facebook Page>>

Shared Hosting with Namecheap

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here